ভালো ল্যাপটপ চেনার ৭ টি গাইডলাইন ২০২৩

buy-laptop-techvilla24

বর্তমান সময়ে ইলেকট্রনিক্স ডিভাইসগুলোর মধ্য ল্যাপটপ অন্যতম একটি ডিভাইস। ইতিপূর্বে ডেস্কটপের অনেক চাহিদা থাকলেও সময়ের কালক্রমে মানুষ এখন উচ্চ কর্ম দক্ষতা সম্পূর্ণ ল্যাপটপই বেশী পছন্দ করে। ল্যাপটপে অনেকগুলো সুবিধা রয়েছে যা ডেস্কটপে পাওয়া প্রায়ই অসম্ভব বলা চলে। তবে আজকে আমাদের আলোচ্য বিষয় হচ্ছে ল্যাপটপ কিনতে চাইলে আপনার কি করা উচিত বা ভালো ল্যাপটপ চেনার উপায় কি,সেই সম্পর্কে কিছু উল্লেখ্যযোগ্য ফ্যাক্টর নিচে আলোচলনা করা গেল ।  

ল্যাপটপ কেনার আগে যে ৭ টি বিষয়ে জেনে নিতে হবে 
 যে কোন ল্যাপটপ কেনার আগে ৭ টি বিষয়ে ভালোভাবে বুঝে নেন, তাহলে ডিসিশন নিতে খুব বেশী বেগ পেতে হবে না এবং অনেক সহজেই একটা ভাল মানের ল্যাপটপ বাছাই করে নিতে পারবেন নিজের জন্য।  

১. প্রয়োজনীয়   কনফিগারেশন এবং স্পেসিফিকেশন নোট করে নিন  

কাজের উপর ভিত্তি করে একেক ধরনের স্পেকস এবং কনফিগারেশন থাকে।  হতে পারে একান্তই পার্সোনাল কাজে ব্যবহার করবেন,অথবা কিছু ডকুমেন্টস নিয়ে কাজ করবেন, লেখা-লেখি, প্রিন্টিং এসব। এই সব কাজে হাই-কনফিগারড ল্যাপটপ এর প্রয়োজন নেই । কিংবা যদি গেম অথবা ভিডিও এডিটিং করতে হয়, তাহলে অবশ্যয়ই  একটু ভালো কনফিগারেশন যুক্ত  ল্যাপটপ কিনতে হবে। তাই ল্যাপটপ কেনার আগে শুরুতেই আপনার প্রয়োজন অনুসারে কনফিগারেশন এবং স্পেসিফিকেশন একটু নোট করে নিতে হবে। যদি দরকার পরে ২ জিবি র‍্যাম, সেখানে ৪ জিবি নিয়ে টাকা নষ্ট করার কোনই প্রয়োজন নেই। আবার যদি দরকার ১৬ জিবি র‍্যাম কিংবা আপনি নিলেন ৮  জিবি, সেটা কাজের গতি কমিয়ে দিবে। এই জন্য সব গুলো পার্টস এর স্পেকস ভালো করে এনালাইজ বা ঘাটাঘাটি করে নেওয়া উচিত।  

২. ল্যাপটপের সাইজ এর ব্যপারে মাথায় রাখুন  

বাজারে ল্যাপটপের বিভিন্ন রকম সাইজ রয়েছে। সাধারন ১৪ ইঞ্চির ল্যাপটপ গুলোকে ছোট, ১৫ ইঞ্চির গুলোকে মাঝারি এবং ১৬ ইঞ্চির গুলোকে বড় হিসেবে ধরা হয়ে থাকে। এই  তিন (৩) ক্যাটাগরি থেকে যেকোনো একটি বেছে নিতে হবে প্রয়োজন এবং কাজের ক্ষেত্র অনুসারে। আপনি যদি ভিডিও ইডিটিং করেন, তাহলে হয়তো বড় স্ক্রিনের প্রয়োজন হবে। দেখা গেছে, সাইজের সাথে দাম অনেক উঠানামা করে। তাই খুব বেশী প্রয়োজন না হলে বেশী বড় সাইজের ল্যাপটপ ইউজ না করাটাই ভাল। এছাড়াও ছোট সাইজের ল্যাপটপ হলে সেটা অনেক পোর্টেবল হয়, যা খুব সহজেই এক স্থান থেকে অন্য স্থানে নিতে পারেন। এবং যদি ল্যাপটপ নিয়ে অনেক সময় এদিকে ওদিকে চলা ফেরা করতে হয় তাহলে ১৪ ইঞ্চি ল্যাপটপের কোনই বিকল্প নেই। 

৩. কিবোর্ড এবং টাচপ্যাড যাচাই  করুন 

আমাদের অনেকের একটা ভুল ধারণা করে থাকে, যে ল্যাপটপের কিবোর্ড এবং টাচপ্যাড ভালো না হলে ও সমস্যা নাই, কারন কাজের জন্য এক্সটার্নাল ব্যবহার করতে হবে। যা মোটেই ঠিক না। নানা রকম অবস্থা এবং কাজের উপর ভিত্তি করে অবশ্যই ল্যাপটপের কিবোর্ড এবং টাচপ্যাড ভালো ভাবে যাচাই  বাচাই করে নেওয়া ভাল । ল্যাপটপ এর মডেলের উপর ভিত্তি করে টাচপ্যাডের পারফর্মেন্স কি সেটা পরীক্ষা করে নেওয়া এবং এর পাশাপাশি অনলাইনে কিছু অনলাইন রিভিউ ও দেখে নিতে পারেন।    

৪. ডিসপ্লে কোয়ালিটি  

ল্যাপটপ কেনার আগে ডিসপ্লে কোয়ালিটি চেক করা অনেক বড় ধরনের ফ্যাক্ট যা একটা ল্যাপটপের গুনোগত মান বিশ্লেষণের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। বর্তমান সময়ে বাজারে অনেক টাইপ এবং সাইজের ডিসপ্লে পাওয়া যায় । ভিডিও এডিটিং এবং গেমিং এ ভাল পারফোমেন্স পাওয়ার জন্য Full HD অথবা 1920-by-1080p এই রেজুলেশনের ডিসপ্লে হলে ভাল হবে। ল্যাপটপের ডিসপ্লের ৩ টা টাইপ আছে, সেগুলো হচ্ছে- Twisted Nematic (TN), In-Plane Switching (IPS), and Organic Light-emitting Diode (OLED)। এই ৩ টা টাইপেরই নিজস্ব সুবিধা এবং অসুবিধা রয়েছে। ল্যাপটপ কেনার আগে ডিসাইড করতে হবে কোন টাইপের স্ক্রিন আপনার প্রয়োজন, সে অনুযায়ী আপনাকে ডিসিশন নিতে হবে।  

৫. ব্যাটারি লাইফ/ব্যাকআপ 

 যদিও ল্যাপটপে সব সময় বিদ্যুৎ সংযোগ রেখে ব্যবহার করা ভাল, কিন্তু এই ক্ষেতে ব্যাটারি লাইফ অনেক বড় একটা ইস্যু হয়ে থাকে। কারন দেখা গেলো, জরুরি একটা কাজের সময় বিদ্যুৎ চলে গেলো কিন্তু আপনাকে কাজটা শেষ করেই উঠতে হবে।এক্ষেত্রে ল্যাপটপের যদি ব্যাটারি ব্যাকাপ ভালো থাকে, তাহলে  খুব সহজেই কাজটা সম্পন্ন করে ফেলা যায়।  তাই অবশ্যই, ব্যাটারির লাইফ, ব্যাটারির ক্যাপাসিটি এবং ব্যাটারির ব্যাকআপ এই বিষয়গুলো ক্লিয়ার হয়ে নিবেন ভালো করে। তাহলে খুব সহজেই সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন আপনার কি ল্যাপটপ কেনা দরকার। 

৬. ব্র্যান্ড 

ল্যাপটপের ক্ষেত্রে ব্র্যান্ড অনেক বড় একটা ব্যাপার। পরিচিত এবং নামীদামী কোন ব্র্যান্ডের ল্যাপটপ কেনাই ভাল। দেখা যাবে হয়তো অন্য কোন অখ্যাত ব্র্যান্ড অনেক কম দামে অনেক হাই কনফিগারেশন অফার করতে পারে, তবে ওসব এভয়েড করাটাই ভাল।  

 ৭. বাজেট 

সবশেষে বাজেট, কারন সব কিছুর মুলে রয়েছে আপনার ঠিক কত টাকা খরচ করার ইচ্ছা রয়েছে একটা ল্যাপটপ কিনতে। আপনার বাজেট অনুযায়ী পছন্দের ল্যাপটপ মিলবে কি না সেটাও একটা ইস্যু। সেজন্য কেনার আগে অবশ্যই আপনার বাজেটের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ ল্যাপটপগুলো অনলাইনে চেক করে বাছাই করে রাখতে হবে। 

উপরোক্ত ৭টি ফ্যাক্টর এনাইলাইজ করলেই  একদম আদর্শ একটা ল্যাপটপ পেয়ে যাবেন, যা আপনি খুব ভালো ভাবেই আপনার কাজে ব্যবহার করতে পারবেন। আশা করছি আমাদের এই গাইড আপনাকে ল্যাপটপ পছন্দ করতে সাহায্য করবে। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *